অনুসন্ধান - অন্বেষন - আবিষ্কার

৮ম দফায় বিএনপির ৪৮ ঘণ্টার অবরোধ শুরু

0

.সরকারের পদত্যাগ, নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে নির্বাচন ও কারাবন্দী নেতাকর্মীদের মুক্তির এক দফা এবং দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের জন্য ঘোষিত তফসিল বাতিলের দাবিতে ফের ৪৮ ঘণ্টা অবরোধ ডেকেছে বিএনপিসহ সরকার বিরোধী আন্দোলনে থাকা রাজনৈতিক দলগুলো। ৮ম দফার এই অবরোধ কর্মসূচি শুরু হয়েছে সকাল ৬টা থেকে শেষ হবে আগামী মঙ্গলবার সকাল ৬টায়।

গত বৃহস্পতিবার বিকালে এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। এর আগে বুধবার সকাল ৬টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত বিএনপি-জামায়াত ও সমমনা দলগুলোর ডাকা অষ্টম দফায় দেশজুড়ে ২৪ ঘণ্টার অবরোধ চলে।

গত ২৮ অক্টোবর মহাসমাবেশে হামলা, নেতাকর্মীদের গ্রেফতারের প্রতিবাদ এবং সরকারের পদত্যাগের এক দফা দাবিতে পরদিন ২৯ অক্টোবর এবং ৩১ অক্টোবর, ১ ও ২ নভেম্বর মোট তিন দিনের অবরোধ কর্মসূচি পালন করে বিএনপি-জামায়াত ও যুগপৎ আন্দোলনের শরিকরা। পরবর্তীতে ৫ ও ৬ নভেম্বর দ্বিতীয় দফায় এবং ৮ ও ৯ নভেম্বর তৃতীয় দফায় অবরোধ কর্মসূচি পালন করে সরকারবিরোধী দলগুলো।

পরে ১১ ও ১২ নভেম্বর চতুর্থ দফা এবং ১৫ ও ১৭ নভেম্বর পঞ্চম দফায় ৪৮ ঘণ্টার অবরোধ কর্মসূচির ঘোষণা দেন তারা। এরপর জাতীয় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর তা প্রত্যাখ্যান করে ফের ১৯ ও ২০ নভেম্বর সারাদেশে হরতাল পালন করে সরকারবিরোধী দলগুলো। পরবর্তীতে ২২ নভেম্বর ভোর ৬টা থেকে ষষ্ঠ দফায় ৪৮ ঘণ্টার অবরোধ পালন করে দলটি। গত ২৪ নভেম্বর ভোর ৬টায় শেষ হয় ওই অবরোধ কর্মসূচি।

এরপর আবারও একদিন বিরতি দিয়ে ২৬ নভেম্বর ভোর ৬টা থেকে ২৮ নভেম্বর ভোর ৬টা পর্যন্ত সর্বাত্মক অবরোধ কর্মসূচি দেয় বিএনপি ও সমমনা দলগুলো।
এদিকে অবরোধের সমর্থনে গতকাল সন্ধ্যা থেকেই রাজধানীসহ সারাদেশে বিক্ষোভ মিছিল, মশাল মিছিল করেছে বিএনপি নেতাকর্মীরা। শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর আগারগাঁও থেকে শেওড়া পাড়া সড়কে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভীর নেতৃত্বে মশাল মিছিল করে নেতাকর্মীরা। এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন কেন্দ্রীয় বিএনপি›র স্বাস্থ্য বিষয়ক সম্পাদক ডা. মো: রফিকুল ইসলাম, মানিকগঞ্জ জেলা বিএনপি’র সহ সভাপতি ড. খন্দকার বাবলু,ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সদস্য নাদিয়া পাঠান পাপন, রামপুরা থানা বিএনপি›র যুগ্ম আহ্বায়ক ও সাবেক কাউন্সিলর নিলুফা ইয়াসমিন নিলু, ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সাবেক সহ সভাপতি তারেকুর জামান তারেক, ঢাকা মহানগর পশ্চিমের সাবেক সভাপতি কামরুজ্জামান জুয়েল, ছাত্রদল কেন্দ্রীয় সংসদের সহ- সভাপতি রাফিজুল হাই রাফিজ, এ বি এম মাহমুদ সর্দার, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ডা: আউয়াল, ইউনুস আলী রাহুল, সহ -সাধারণ সম্পাদক আরিফুর রহমান আমিন, সহ সাংগঠনিক সম্পাদক জাকারিয়া হোসেন ইমন, ইডেন মহিলা কলেজ ছাত্রদলের সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক সৈয়দা সুমাইয়া পারভীন, সহ-সভাপতি ঢাকা কলেজ ছাত্রদল শাহাবুদ্দীন ইমন, চট্রগ্রাম মেডিকেল কলেজ ছাত্র দলের সদস্য সচিব ডাঃ প্রতীক, জাবি ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক পদ- পার্থী হুমায়ুন হাবিব হিরণ,প্যাবের সভাপতি কামরুজ্জামান পল্লব, মাসুম বিশ্বাস, দপ্তর সম্পাদক হাসান, বগুড়া যুবদলের সাবেক সদস্য সুলতান আহমেদ,ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবদলের সাবেক সদস্য জাহিদ সাগর, ঢাকা মহানগর উওর জাসাস সদস্য জাকির হোসেন খালাসি, কেন্দ্রীয় ছাত্রদল নেতা ডা.সাব্বির, মহিউদ্দিন মাহি, মিরাজ হোসেন, ডা.মুনতাসীর, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রদলের সাইরা চন্দ্রা,মন্জিলা মাতবর রিমি, সরকারি মাদ্রাসা আলীয়ার সিনিয়র যুগ্ম আহ্বায়ক মো: সানাউল্লাহ, সহ-সভাপতি নাসির উদ্দীন মিঝি, নাদিম খান – সাংগঠনিক সম্পাদক আখতারুজ্জামান ইলিয়াস হল- ঢাকা কলেজ ছাত্রদল, ইমন ইকবাল সদস্য ঢাকা কলেজ ছাত্রদল, ঢাকা মহানগর পূর্ব ছাত্রদল নেতা রাসেল হোসেন, আব্দুর রব সিয়াম, রামপুরা থানা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক রোমান ও সাংগঠনিক সম্পাদক সোহান, বরগুনা জেলা ছাত্রদলের সম্পাদক হৃদয়, টাঙ্গাইল জেলা ছাত্রদলের আতিক-সহ নেতৃবৃন্দ।

এ সময় রুহুল কবির রিজভী বলেন দাবি আদায় না হওয়া বিএনপির আন্দোলন চলবে। তিনি বলেন অবৈধ সরকারের বিরুদ্ধে দেশের বেশিরভাগ জনপ্রিয় রাজনৈতিক দল। তারা নির্বাচন বর্জন করেছে। নির্দলীয় নিরপেক্ষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবি আদায় করেই তারা নির্বাচনে যাবে। তিনি আরও বলেন চারদিক থেকে যেভাবে সরকারের বিরুদ্ধে লাল নোটিশ আসছে, জনগণ যেভাবে জেগে উঠেছে তাতে বিজয়ের মাসেই অবৈধ সরকারের পতন ঘটবে। দেশকে বাঁচাতে হলে সরকারের পতন ছাড়া কোন বিকল্প নেই।